আজ : ০৫:৫২, অক্টোবর ২২ , ২০১৯, ৭ কার্তিক, ১৪২৬
শিরোনাম :

৯১তম অস্কারের বিচিত্র সাতসতেরো


আপডেট:০২:০৩, ফেব্রুয়ারি ২২ , ২০১৯
photo

বিনোদন ডেস্ক: গোল্ডেন গ্লোব ও বাফটার পালা শেষ, এবার চলচ্চিত্র দুনিয়ার সবচেয়ে সম্মানজনক পুরস্কার অস্কারের দিকে সবার নজর। আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসে ডলবি থিয়েটারে ৯১তম অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডসের জন্য জড়ো হবেন নামিদামি তারকারা। আলফনসো কুয়ারন পরিচালিত ‘রোমা’ ও ইয়র্গেস লানতিমোসের ‘দ্য ফেভারিট’ ১০টি করে মনোনয়ন পেয়েছে। চলুন দেখা যাক, এবারের অস্কারের বিচিত্র ১৭টি তথ্য।

১. সংগীতাঙ্গনে পা রাখার পর কুইন ব্যান্ডের গান ‘রেডিও গাগা’য় অনুপ্রাণিত হয়ে লেডি গাগা নিজের নাম রাখেন। তখন তার মুখে শোনা গেছে এই ব্যান্ডের বন্দনা। তবে খ্যাতি পাওয়ার এক দশকেরও বেশি সময় পর তাদের দ্বৈরথ দেখা দেয়। লেডি গাগা অভিনীত ‘অ্যা স্টার ইজ বর্ন’ ৯১তম অস্কারে সেরা চলচ্চিত্র বিভাগে কুইন ব্যান্ডের গায়ক ফ্রেডি মার্কারির বায়োপিক ‘বোহেমিয়ান র‌্যাপসোডি’র সঙ্গে লড়ছে!

২. ক্রিশ্চিয়ান বেল ও অ্যামি অ্যাডামস এ নিয়ে তৃতীয়বার মনোনয়ন পেলেন। তিনবারই তারা একসঙ্গে অভিনয় করেছেন! এর আগে ‘দ্য ফাইটার’ (২০১০) ও ‘আমেরিকান হাসল’ (২০১৩) ছবিতে তাদের একফ্রেমে দেখা গেছে। এবার ‘ভাইস’ ছবির জন্য মনোনীত হয়েছেন তারা। যদিও এর আগে ‘দ্য ফাইটার’ ছবির জন্য সেরা পার্শ্ব-অভিনেতার অস্কার জিতেছেন বেল। অ্যামির কাছে এই পুরস্কার এখনও অধরা।

৩. অস্কার এখনও অধরা এমন অভিনেত্রীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশিবার মনোনয়নের খেতাব ধরে রেখেছেন গ্লেন ক্লোজ। তবে ‘দ্য ওয়াইফ’ ছবির সুবাদে এবারের আসরে তিনিই সবচেয়ে ফেভারিট। এর আগে ‘ফাটাল অ্যাট্রাকশন’ (১৯৮৭), ‘ডেঞ্জারাস লিয়াইজন্স’ (১৯৮৮) ও ‘আলবার্ট নবস’ (২০১১) ছবির জন্য সেরা অভিনেত্রী বিভাগে আর ‌‌‘দ্য ওয়ার্ল্ড অ্যাকর্ডিং টু গার্প’ (১৯৮২), ‘দ্য বিগ চিল’ (১৯৮৩) ও ‘দ্য ন্যাচারাল’ (১৯৮৪) তাকে এনে দেয় সেরা পার্শ্ব-অভিনেত্রীর মনোনয়ন।

৪. ‘ভাইস’ ছবিতে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট ডিক চেনির চরিত্রে অভিনয় করেছেন ক্রিশ্চিয়ান বেল। দু’জনের জন্মদিন একই! তবে চেনির মতো রিপাবলিকান পার্টির সমর্থক নন বেল। গোল্ডেন গ্লোব অ্যাওয়ার্ড জিতে পরোক্ষভাবে সেটা জানিয়ে দেন তিনি।

৫. এবারের অস্কারে ‘গ্রিন বুক’ ছবির জন্য সেরা পার্শ্ব-অভিনেতা বিভাগে সবচেয়ে ফেভারিট মাহেরশালা আলি। দুই বছর আগে ‘মুনলাইট’ ছবিতে নৈপুণ্য দেখিয়ে একই পুরস্কার পেয়েছেন তিনি। ৯১তম অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডসে কৃষ্ণাঙ্গ এই তারকা জিতলে একই বিভাগে কম সময়ে অস্কার জয়ের রেকর্ড গড়বেন। এর আগে টম হ্যাঙ্কস ১৯৯৩ সালে ‘ফরেস্ট গাম্প’ ও ১৯৯৪ সালে ‘ফিলাডেলফিয়া’ ছবির জন্য সেরা অভিনেতা বিভাগে অস্কার জেতেন।

৬. সেরা অভিনেতা ও পার্শ্ব-অভিনেতা বিভাগে মনোনীত পাঁচজনের চারজনই (ক্রিশ্চিয়ান বেল, উইলেম ড্যাফো, স্যাম রকওয়েল, রামি মালিক) বাস্তব চরিত্র ফুটিয়ে তুলেছেন। তাদের মধ্যে আছেন সংগীতশিল্পী ফ্রেডি মার্কারি (বোহেমিয়ান র‌্যাপসোডি), চিত্রশিল্পী ভিনসেন্ত ভ্যান গগ (অ্যাট এটারনিটি’স গেট), রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ডিক চেনি ও জর্জ ডব্লিউ বুশ (ভাইস)।

৭. এবারই প্রথম অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডসে সেরা চলচ্চিত্র বিভাগে জায়গা করে নিলো নেটফ্লিক্স। তাদের প্রযোজিত ‘রোমা’ ইতোমধ্যে বাফটাসহ অনেক পুরস্কার জিতে অস্কার জয়ের দৌড়ে এগিয়ে আছে।

৮. সেরা অভিনেত্রী বিভাগে মনোনীত ‘রোমা’ তারকা ইয়ালিৎসা অ্যাপারিসিও এর আগে কখনও অভিনয় করেননি। প্রথম ছবির সুবাদে এর আগে অস্কারে সেরা অভিনেত্রী বিভাগে মনোনয়ন পেয়েছেন কুভেনঝানে ওয়ালিস (বিস্টস অব দ্য সাউদার্ন ওয়াইল্ড, ২০১৩), গ্যাবুরি সিদিবে (প্রিসিয়াস, ২০০৯) ও হেইলি স্টেইনফেল্ড (ট্রু গ্রিট, ২০১০)।

৯. অভিনয় শিল্পীদের চারটি বিভাগেই এবার সমকামী চরিত্র ফুটিয়ে তোলা তারকারা পুরস্কার পেতে পারেন! তারা হলেন ‘দ্য ফেভারিট’ ছবির অলিভিয়া কোলম্যান ও র‌্যাচেল ভাইস, ‘গ্রিন বুক’-এর মাহেরশালা আলি ও ‘বোহেমিয়ান র‌্যাপসোডি’র রামি মালিক। গত বছর এ চারটি বিভাগে বাফটায় পুরস্কৃতরাই শেষ হাসি হেসেছেন অস্কারে। তারা হলেন, ফ্রান্সেস ম্যাকডরম্যান্ড, গ্যারি ওল্ডম্যান, অ্যালিসন জেনি ও স্যাম রকওয়েল। তবে এবার এর পুনরাবৃত্তি না হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। কারণ, অলিভিয়া কোলম্যানকে হটিয়ে সেরা অভিনেত্রী হয়ে যেতে পারেন গ্লেন ক্লোজ।

১০. ২০০৮ সালে ‘দ্য ডার্ক নাইট’ অস্কারের নিয়ম পরিবর্তনে ভূমিকা রেখেছিল। ওই বছর সেরা চলচ্চিত্র বিভাগে মনোনীত ছবির সংখ্যা পাঁচ থেকে বাড়িয়ে করা হয় ১০। আশা করা হচ্ছিল, এর মাধ্যমে সুপারহিরো ছবিগুলো অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডসের নিয়মিত স্বীকৃতি পাবে। যদিও এক দশক পর আবার কোনও সুপারহিরো ছবি লাভবান হলো। এবারের অস্কারে সেরা চলচ্চিত্র বিভাগে জায়গা পেয়েছে ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’।

১১. সেরা মৌলিক গান বিভাগে আরবিজি’র গাওয়া ‘আই উইল ফাইট’-এর সুবাদে দশমবারের মতো অস্কার মনোনয়ন পেলেন সংরাইটার ডায়েন ওয়ারেন। তবে আগের নয়বার খালি হাতে ফিরতে হয়েছে তাকে। টাইমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘এবার পুরস্কার পেলে অজ্ঞান হয়ে যাবো। তখন আমাকে ধরাধরি করে নিয়ে যেতে হবে। এটা বিব্রতকরই হবে!’

১২. এ বছর সেরা অ্যানিমেটেড ছবি বিভাগে মনোনয়ন পেয়েছে ‘ইনক্রেডিবলস টু’। তবে অস্কারে ২০০১ সালে চালু হওয়া এই শাখায় সিক্যুয়েল ছবির জয় বিরল। সবশেষ ২০১০ সালে ‘টয় স্টোরি থ্রি’ অ্যানিমেটেড ছবির অস্কার জিতেছিল। ২০১৪ সালে সেরা হওয়া ‘বিগ হিরো সিক্স’ কিন্তু কোনও সিক্যুয়েল নয়। ‘টয় স্টোরি’র দ্বিতীয় ও তৃতীয় পর্বের মাঝে ১১ বছরের ব্যবধান ছিল। ‘ইনক্রেডিবলস টু’র সঙ্গে প্রথম ছবির ব্যবধান আরও বেশি (১৪ বছর)।

১৩. ‘অ্যা স্টার ইজ বর্ন’ আটটি বিভাগে মনোনয়ন পেলেও সেরা পরিচালকের তালিকায় বাদ পড়েছেন ব্র্যাডলি কুপার। ছবিটি নির্মাণে নিজের ব্যক্তিজীবন কতটা প্রভাবিত করেছে তা সাংবাদিকদের বলতে অস্বীকৃতি জানান তিনি। নিউ ইয়র্ক টাইমসে এ নিয়ে সমালোচনা করা হয় তার। ধারণা করা হচ্ছে, সেরা পরিচালক বিভাগ থেকে এটাই তাকে ছিটকে দিয়েছে!

১৪. ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’-এর নাম ভূমিকায় অভিনয় করা চ্যাডউইক বোজম্যানের আফ্রিকান উচ্চারণে সংলাপ বলার কথা ছিল না। মার্ভেল এন্টারটেইনমেন্ট চেয়েছিল, ওয়াকান্ডার অধিবাসীরা ব্রিটিশ উচ্চারণে কথা বলুক। নয়তো দর্শকদের কাছে গ্রহণযোগ্য করা কঠিন হয়ে পড়বে!

১৫. এবার ‘ম্যারি পপিন্স রিটার্নস’ পেয়েছে চারটি মনোনয়ন। তবে ১৯৬৪ সালে ‘ম্যারি পপিন্স’ অস্কারে ১৩টি মনোনয়নের মধ্যে পাঁচটি পুরস্কার জিতেছিল। যদিও ওইবার সেরা ছবি হয়েছিল ‘মাই ফেয়ার লেডি’।

১৬. অ্যাকাডেমির মনোযোগ আকর্ষণ করতে এখন আর পুরস্কার মৌসুমের কাছাকাছি সময়ে ছবি মুক্তি দেওয়া লাগে না। গতবার ‘গেট আউট’ অস্কার মনোনয়ন পাওয়ার প্রায় এক বছর আগে মুক্তি পেয়েছিল। এবারের সেরা চলচ্চিত্র বিভাগে মনোনীত ‘ব্ল্যাক প্যান্থার’ মার্চে আর ‘ব্ল্যাকক্ল্যান্সম্যান’ আগস্টে মুক্তি পায়।

১৭. সেরা পার্শ্ব-অভিনেতা বিভাগে এবার মনোনীত রিচার্ড ই গ্র্যান্ট পুরনো প্রজন্মের কাছে ‘উইথনেইল অ্যান্ড আই’ (১৯৮৭) ছবির জন্য পরিচিত। তবে ১৯৯৭ সালের ‘স্পাইস ওয়ার্ল্ড’-এ স্পাইস গার্লসের ম্যানেজার চরিত্রটি তাকে আলাদা পরিচিতি এনে দেয়। ছবিটির জন্য মার্কিন অভিনেত্রী লেনা ডানহ্যাম ও ব্রিটিশ গায়িকা অ্যাডেল তার ভক্ত।



সাম্প্রতিক খবর

ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত পেছাবে বেক্সিট : সানডে টাইমস

photo লন্ডনবিডিনিউজ২৪ : ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন যদি চলতি সপ্তাহে অর্থাৎ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তার সম্পাদিত চুক্তি পার্লামেন্টে পাস করাতে ব্যর্থ হন তাহলে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ব্রেক্সিট কার্যকরের নির্ধারিত সময় পিছিয়ে দেবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। যুক্তরাজ্যের দৈনিক দ্য সানডে টাইমসের এক প্রতিবেদনে কূটনৈতিক সূত্রের বরাতে এমন খবর জানিয়ে বলা হয়েছে, বর্ধিত সময়

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment