আজ : ০৫:৩২, জুলাই ১১ , ২০২০, ২৬ আষাঢ়, ১৪২৭
শিরোনাম :

পথে যেতে যেতে


••• কে এম আবুতাহের চৌধুরী

আপডেট:০৯:৫২, ফেব্রুয়ারি ১ , ২০২০
photo

এক:

দেশে যেতে বিড়ম্বনা

————————

গতকাল জুমআ’র নামাজ শেষে ইষ্ট লণ্ডন মসজিদ থেকে বের হয়েছি।সাক্ষাৎ হলো একজন সংবাদ কর্মী ও সাংস্কৃতিমনা প্রবাসী বাংলাদেশীর সাথে।তাঁর মনটা ছিল বড়ই ভারাক্রান্ত।চেহারায় চিন্তার ছাপ।বিএনপির মতাদর্শে বিশ্বাসী।

গত সপ্তাহে তাঁর জন্মদাতা আদরের পিতা বাংলাদেশে ইন্তেকাল করেছেন।বাবার অসুস্থতার খবর শুনে দেশে যেতে পারেননি।তিনি বাবার একমাত্র সন্তান।বাবা ফোনে বলেছেন বাংলাদেশে না যাওয়ার জন্য।কারন দেশে গেল সরকারী পেটুয়া বাহিনী বা পুলিশ যদি তাঁকে ধরে নিয়ে যায় তখন তার কি হবে? কে জেল থেকে বের করবে? তাই সরকারী বাহিনীর ভয়ে তিনি দেশে যাননি ।

শেষ পর্যন্ত নিজের পিতা মারা গেলেন কিন্তু জানাযায়ও শরীক হতে পারলেন না।

আমি একটু সান্তনা দিলাম।হায়রে বাংলাদেশ ! ভিন্নমত ধারন করার কারনে তোমার সন্তান যেতে পারলো না নিজ মাতৃভূমিতে ।

দুই :

লুৎফুর রহমানের প্রশংসা

——————————

শুক্রবার সকালে গিয়েছিলাম ওয়াপিং এর সেন্ট জর্জ সুইমিং পুলে।এই শীতকালেও পানিতে তেমন ঠাণ্ডা ছিলোনা।সাথে ছিলেন সাংবাদিক খান জামাল ।উভয়েই পানিতে সাঁতার কেটেছি ।খুবই ভাল লেগেছে।সুইমিং শেষে শাওয়ার করে যখন কাপড় পরিবর্তন করছিলাম তখন শাওয়ারে দু’জন লোক কথা বলছিলো। তারা গরম পানিতে গোসল করছে ,আর বলছিলো যে- টাওয়ার হ্যামলেটসের সাবেক নির্বাহী মেয়র লুৎফুর রহমান কমিউনিটিকে অনেক সাহায্য করেছেন।স্কুলে ছাত্র ছাত্রীদের ফ্রি স্কুল মিল দিয়েছিলেন,কম মূল্যে কবরের ব্যবস্থা ,কাউন্সিল ট্যাক্স ফ্রিজ এবং কমিউনিটি সংগঠনগুলোকে সাহায্য করেছিলেন ।কিন্তু কিছু হিংসুক লোক অন্যায়ভাবে তাঁকে সরিয়ে দিলো।আরেকজন বললেন যে - সিলেটের মানুষ যেভাবে সাইফুর রহমানকে ভুলতে পারবেনা তেমনি টাওয়ার হ্যামলেটসের জনগণ লুৎফুর রহমানের অবদানকে ভুলতে পারবেনা।আজ টাওয়ার হ্যামলেটসের যে দুরাবস্থা তার উত্তরণে লুৎফুর রহমানের কোন বিকল্প নেই।

কথাগুলো শুনে আমাদের খুবই ভাল লাগলো।

আমাদের সমাজে এখনো মানুষের বিবেক আছে ।ভাল মন্দ বুঝতে পারে।কিন্তু হিংসুক ও স্বার্থপর ব্যক্তিরা অন্ধ ।সমাজের ভাল তাদের ভাল লাগেনা। টাওয়ার হ্যামলেটসে বর্তমানে লেজে গোবরে অবস্থা।মানুষের দুর্গতির শেষ নেই।সবাই এখন একজন লুৎফুর রহমানের প্রয়োজনীয়তা উপলব্দি করছেন।

তিন :

বেড়ায় ধান খেয়েছে আর মেয়রকে হাইকোর্টে

————————————————

শুক্রবার বিকালে ছিলো দুটি সাংবাদিক সম্মেলন।ব্যক্তিগত অসুবিধায় যেতে পারিনি ।তবে উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন যে ,একটি ছিলো-সিলেটে ওয়ান ব্যাংকের ইসলামপুর শাখা থেকে একজন প্রবাসী বাঙালীর ৭৬ লাখ টাকা প্রতারণা করে তেইশটি চেকের মাধ্যমে আত্মসাৎ করেছে ঐ ব্যাংকের অফিসার ।পরবর্তী সময়ে ২৬ লাখ টাকা ফেরত দিলেও ৫০ লাখ টাকা এখনও ফেরত দেয়নি।বরং উক্ত প্রবাসীর বিরুদ্ধে মানহানীর মামলা করেছে এবং বিভিন্ন হুমকি দিচ্ছে।তিনি জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মামলা মোকাবিলা করতে বাংলাদেশে যাচ্ছেন।

আরেকটি সংবাদ সম্মেলন করে প্যারেন্টস সেন্টার সহ বিভিন্ন কমিউনিটি সংগঠন।টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল এবার ৮১টি সংগঠণকে কোন গ্রাণ্ট দেয়নি।তাই তারা হাইকোর্টের আশ্রয় নিয়েছেন।তারা মামলার খরচ চালানোর জন্য কমিউনিটির সাহায্য চান।অন লাইনে ক্রাউড ফাণ্ডিং এর জন্য আবেদন করেছেন।

এ মামলা হয়েছে মেয়র জন বিগসের বিরুদ্ধে।হাইকোর্টে জুডিশিয়াল রিভিউ হবে।

এবার ঠেলা সামলাও।চাচারা নাগাল পেয়েছে।আমি মনে করি মামলার খরচ যোগাতে সকলের সাহায্য করা দরকার ।



সাম্প্রতিক খবর

জমজম বাংলাদেশের এক্সিকিউটিভ ডনর মেম্বার হলেন আলহাজ্ব এ এস মোহাম্মদ সিংকাপনী

photo লন্ডনবিডিনিউজ২৪ : আন্তর্জাতিক চ্যারিটি সংস্থা জমজম বাংলাদেশের এক্সিকিউটিভ ডনর মেম্বার হয়েছেন সাপ্তাহিক বাংলা পোষ্ট পত্রিকার সাবেক ম্যানেজিং ডাইরেক্টর ,বিশিষ্ট সমাজসেবী ও পিকাডেলী মসজিদের প্রতিষ্ঠাতা সেক্রেটারী আলহাজ্ব এ এস মোহাম্মদ সিংকাপনী।তিনি সম্প্রতি বাংলাদেশ সফরকালে জমজম বাংলাদেশের সিলেটে শিক্ষা ও সমাজসেবামূলক কার্যক্রম দেখে সন্তুষ্ট হয়ে ১০ লাখ টাকা অনুদান

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment