আজ : ০৪:৫১, জানুয়ারি ২৪ , ২০২০, ১০ মাঘ, ১৪২৬
শিরোনাম :

‘বিদ্রোহী’দের সঙ্গে ছাত্রলীগের সমঝোতার পর সেলফি


আপডেট:০২:৫২, ফেব্রুয়ারি ২৬ , ২০১৯
photo

ঢাকা প্রতিবেদক: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে গতকাল সোমবার মধুর ক্যানটিনে সংবাদ সম্মেলন করে স্বতন্ত্র প্যানেল ঘোষণা করেছে ছাত্রলীগের সাবেক নেতাদের একটি অংশ৷ ডাকসুতে ছাত্রলীগের মনোনয়নবঞ্চিত নেতাদের ‘বিদ্রোহী’ প্যানেল হিসেবে এটি গতকাল আলোচনায় ছিল৷ ওই প্যানেলের সঙ্গে আজ মঙ্গলবার ছাত্রলীগের সমঝোতা হয়েছে৷ ডাকসু নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছে ছাত্রলীগের এই ‘বিদ্রোহী’ প্যানেলটি।

ছাত্রলীগের সাবেক নেতা সোহান খানকে ভিপি (সহসভাপতি) ও আমিনুল ইসলামকে জিএস (সাধারণ সম্পাদক) করে ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী অসাম্প্রদায়িক সাধারণ শিক্ষার্থীদের পরিষদ’ নামে ছাত্রলীগের ‘বিদ্রোহী’ প্যানেলটি আত্মপ্রকাশ করে।

সমঝোতার পর আজ মঙ্গলবার দুপুরে মধুর ক্যানটিনের সামনে ‘বিদ্রোহী’ প্যানেলের সদস্যদের সঙ্গে সেলফি তোলেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন৷ শোভনকে ‘বিদ্রোহী’ প্যানেলের নেতা আমিনুল ইসলাম ও আল মামুনের সঙ্গে হাস্যোজ্জ্বল বাক্যবিনিময় করতে দেখা যায়৷

সেলফি তোলা শেষে ‘বিদ্রোহী’ প্যানেল থেকে জিএস প্রার্থী আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা সবাই শেখ হাসিনার রাজনীতি করি৷ তাই ডাকসু নির্বাচনে সবাই একসঙ্গে কাজ করতে চাই৷ আমাদের মধ্যে কোনো বিভাজন নেই৷’ গতকাল আলাদা প্যানেল ঘোষণার বিষয়ে আমিনুল বলেন, ‘কাঙ্ক্ষিত মূল্যায়ন না পাওয়ায় আমাদের মধ্যে একটু অভিমান হয়েছিল৷ কিন্তু আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর আমরা সন্তুষ্ট৷ পার্টিতে কাজ করলে আমাদের যথাযথ মূল্যায়ন করার আশ্বাস দিয়েছেন তাঁরা৷’

এ বিষয়ে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন বলেন, ‘ছাত্রলীগে কোনো বিদ্রোহী গ্রুপ নেই৷ ছাত্রলীগের নেতা-কর্মী অনেক, কিন্তু ডাকসুতে পদসংখ্যা অল্প৷ এর ফলে সবাইকে মনোনয়ন দেওয়া হয়তো সম্ভব হয়নি৷ এটা নিয়েই একটু মনোমালিন্য হয়েছিল৷ এখন কোনো সমস্যা নেই৷’



সাম্প্রতিক খবর

বৃটেনে ইমিগ্রশন আইন শিথিল

photo লন্ডনবিডিনিউজ২৪ : বিদেশি কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে বছরে ৩০ হাজার পাউন্ড বেতন দেওয়ার যে শর্ত রয়েছে, সেটি বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যুক্তরাজ্য সরকার। গতকাল মঙ্গলবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এ সিদ্ধান্তের কথা জানান। বরিস জনসন বলেন, ব্রেক্সিট পরবর্তী সময়ের জন্য সরকার যে অভিবাসন নীতি প্রণয়ন করতে যাচ্ছে, আয়ের ওই শর্ত তার সঙ্গে সংগতিপূর্ণ নয়।

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment