আজ : ১০:২৪, মার্চ ২১ , ২০১৯, ৭ চৈত্র, ১৪২৫
শিরোনাম :

ঢাকার সড়কে কোনো ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলতে দেয়া হবে না : ডিএমপি কমিশনার


আপডেট:১০:০২, মার্চ ১৭ , ২০১৯
photo

ঢাকা প্রতিবেদক: রাজধানী ঢাকার সড়কে কোনো ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলতে দেয়া হবে না বলে হুশিয়ার করেছেন ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া।রোববার দুপুরে সোনারগাঁও হোটেলের উল্টোপাশে ট্রাফিক শৃঙ্খলা সপ্তাহের উদ্বোধনকালে তিনি এ হুশিয়ারি দেন। আগামী ২৩ মার্চ পর্যন্ত এ ট্রাফিক শৃঙ্খলা সপ্তাহ চলবে।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ঢাকায় যানজট নিরসন, ট্রাফিক আইন মেনে চলা ও পথচারীদের সুষ্ঠু চলাচল নিশ্চিত করতে ট্রাফিক শৃঙ্খলা সপ্তাহ পালন করা হচ্ছে।তিনি বলেন, রাজধানীতে উন্নয়নকাজ চলছে। এমআরটি, বিআরটি, মেট্রোরেলসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের জন্য রাস্তা সংকুচিত হয়ে এসেছে। যানজট অসহনীয় পর্যায়ে চলে গেছে।তবে আমরা সর্বদা পরিশ্রম করে নানা উদ্যোগ গ্রহণ করে যানজট সহনীয় পর্যায়ে নিয়ে আসার চেষ্টা করছি বলে জানান তিনি।

আছাদুজ্জামান বলেন, ১৫০টি বাসস্টপ চিহ্নিত করেছি। সিটি কর্পোরেশনের সঙ্গে সমন্বয় করে রোড মার্কিং করেছি। বাসচালকদের প্রতি আহ্বান জানাই— তারা যেন যথাযথ নিয়ম মেনে যাত্রী ওঠানামা করান। একই সঙ্গে একটি ইন্টারসেকশন থেকে আরেকটি ইন্টারসেকশন পর্যন্ত বাসের দরজাগুলো বন্ধ রাখতে হবে। পাল্লা দিয়ে গাড়ি চালাবেন না। যত্রতত্র যাত্রী ওঠানামা করবেন না। তা না হলে আমরা কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেব।

ডিএমপি কমিশনার আরও বলেন, মোবাইলে কথা বলতে বলতে গাড়ি চালানো অপরাধ। আমরা কাউকে মোবাইলে কথা বলা অবস্থায় গাড়ি চালাতে দেখলে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেব।ফুটওভার ব্রিজ, আন্ডারপাস, জেব্রাক্রসিং ছাড়া পথচারীদের রাস্তা পার না হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, অনেক সময় পথচারীরা চলন্ত গাড়ির সামনে ঝাঁপ দিয়ে রাস্তা পার হন। রাস্তার মাঝখানের আইল্যান্ডের কাঁটাতারের বেড়া ভেঙে রাস্তা পার হওয়ার চেষ্টা করেন। মোবাইলে কথা বলতে বলতে রাস্তা পার হন।

যানবাহনের মালিক ও চালকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনারা গাড়ির কাগজপত্র ঠিক রাখবেন। ফিটনেসবিহীন গাড়ি সড়কে চলাচল করতে দেয়া হবে না। চালকদের মাসিক ঠিকাদারি ভিত্তিতে গাড়ি চালাতে দেবেন না। তা হলেই কেবল যানজট নিরসন এবং দুর্ঘটনা প্রতিরোধ করা যাবে।



সাম্প্রতিক খবর

পোস্ট-অপারেটিভে নিরবচ্ছিন্ন ঘুমে ওবায়দুল কাদেরের আরও ২২ ঘণ্টা

photo আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সিঙ্গাপুর মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতাল থেকে: বাইপাস সার্জারির পর সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে ঘুম পাড়িয়ে রাখা হয়েছে। ৪৮ ঘণ্টা পার হলেই তাকে জাগানো হবে। এরই মধ্যে প্রায় ২৬ ঘন্টা পেরিয়ে গেছে। বর্তমানে তিনি পোস্ট অপারেটিভ কেয়ারে নিরবচ্ছিন্ন ঘুমে রয়েছেন। সিঙ্গাপুর মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালের চিকিৎসকরা ওবায়দুল

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment