আজ : ০৪:৫৪, জানুয়ারি ২৪ , ২০২০, ১০ মাঘ, ১৪২৬
শিরোনাম :

বিএনপি নেতৃবৃন্দের সৌজন্যতা ও সহমর্মিতার জন্য ধন্যবাদ জানালেন তথ্যমন্ত্রী


আপডেট:০৪:৪৪, মার্চ ৪ , ২০১৯
photo

ঢাকা প্রতিবেদক: তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসাধীন থাকাকালে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে দেখতে এসে সহমর্মিতা প্রকাশ করায় বিএনপি’র জ্যেষ্ঠ নেতৃবৃন্দকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘আমরা ভিন্ন রাজনৈতিক মতবাদে বিশ্বাসী হলেও একে অপরের প্রতি আমাদের সৌজন্যতা ও সহমর্মিতা থাকা উচিত। বিএনপি’র মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দকে তাদের এ সৌজন্যতা ও সহমর্মিতার জন্য আমি ধন্যবাদ জানাই।’

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড.হাছান মাহমুদ আজ সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবে সদ্য প্রয়াত সাংবাদিক শাহ আলমগীরের স্মরণে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে) আয়োজিত এক শোক সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ ধন্যবাদ জানান। তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার কনিষ্ঠ পুত্র আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেসময় সমবেদনা জানাতে বেগম খালেদা জিয়ার গুলশানের কার্যালয়ে তাকে সহমর্মিতা জানানোর জন্য যান। দশ মিনিট দাঁড়িয়ে থাকার পরও সেদিন দরোজা খোলা হয়নি। খালেদা জিয়া সৌজন্যতা রক্ষা করেননি।’

এরআগে ওই শোক সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় ড. হাছান বলেন,বাংলাদেশ প্রেস ইনিষ্টিটিউটের (পিআইবি) মহাপরিচালক ও খ্যাতিমান সাংবাদিক প্রয়াত মো. শাহ আলমগীর তরুণ প্রজন্মের সাংবাদিকদের কাছে এক অনন্য উদাহরণ হিসেবে চিরকাল স্মরণীয় হয়ে থাকবে। তথ্যমন্ত্রী প্রয়াত এই সাংবাদিকের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন এবং তার পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান।

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু জাফর সূর্যের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ শোক সভায় প্রধানমন্ত্রীর সাবেক তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, বিএফইউজে’র সাবেক সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, বিশিষ্ট সাংবাদিক কুদ্দুস আফ্রাদ প্রমূখ বক্তৃতা করেন।



সাম্প্রতিক খবর

বৃটেনে ইমিগ্রশন আইন শিথিল

photo লন্ডনবিডিনিউজ২৪ : বিদেশি কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে বছরে ৩০ হাজার পাউন্ড বেতন দেওয়ার যে শর্ত রয়েছে, সেটি বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যুক্তরাজ্য সরকার। গতকাল মঙ্গলবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এ সিদ্ধান্তের কথা জানান। বরিস জনসন বলেন, ব্রেক্সিট পরবর্তী সময়ের জন্য সরকার যে অভিবাসন নীতি প্রণয়ন করতে যাচ্ছে, আয়ের ওই শর্ত তার সঙ্গে সংগতিপূর্ণ নয়।

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment