আজ : ০৫:২২, জুলাই ১১ , ২০২০, ২৬ আষাঢ়, ১৪২৭
শিরোনাম :

ইউকিপ ও টোরি এমপি বর্ডার কন্ট্রোলের পক্ষে : মাইগ্রেশন ওয়াচের চাঞ্চল্যকর রিপোর্ট


আপডেট:০৩:২১, মে ১৮ , ২০১৬
photo

সৈয়দ শাহ সেলিম আহমেদ : লন্ডন ও ব্রাসেলসে যখন টান টান উত্তেজনা ও টেনশন চলতেছে ২৩ তারিখের গণভোট নিয়ে, ঠিক তখনি গত রাতে শেষ প্রহরে মাইগ্রেশন ওয়াচ ইউকে ব্রিটেনের ইমিগ্রেশন পরিস্থিতি নিয়ে এক চাঞ্চল্যকর রিপোর্ট প্রকাশ করে ওয়েস্টমিনিস্টারের রাজনীতিতে হৈ হুল্লুড় ফেলে দিয়েছে। মাইগ্রেশন ওয়াচ ইউকে তাদের রিপোর্টে উল্লেখ করেছে, মাস ইমিগ্রেশন ব্রিটিশ ট্যাক্সপেয়ারদের বছরে ১৭ বিলিয়ন পাউন্ড গচ্ছা দিতে হচ্ছে । থিংক ট্যাক খ্যাত এই অর্গেনাইজেশন বলছে , নন-ইউরোপিয়ান ইকোনোমিক এরিয়া থেকে আগত মাইগ্রেন্টরাই ব্রিটিশ অর্থনীতিতে ও ট্যাক্সপেয়ারদের উপর বোঝা হয়ে আছে। মাইগ্রেশন ওয়াচ ইউকে তাদের রিপোর্টে একটি তুলনামূলক চিত্রও তুলে ধরেছে, তাতে তারা দেখিয়েছেন-

ব্রিটেন যদি ইউরীপিয় ইউনিয়ন ত্যাগ করে তাহলে বছরে ১.২ বিলিয়ন পাউন্ড সেইভ করতে পারে।

মাইগ্রেশন ওয়াচের তুলনামূলক চিত্র-

২০১৪-২০১৫ সালে দেখা গেছে মাইগ্রেন্টরা কন্ট্রিবিউট করেছেন বা টয়াক্স দিয়েছেন ৮৯.৭ বিলিয়ন পক্ষান্তরে তাদের জন্য সরকারের খরচ হয়েছে ১০৬.৭ বিলিয়ন পাউন্ড অর্থাৎ ট্যাক্সপেয়ারদের টাকা ২০ বিলিয়ন পাউন্ড অতিরিক্ত খরচ করতে হয়েছে তাদের জন্যে। মাইগ্রেশন ওয়াচ বলছে, এভারেজ ইউকের প্রত্যেক বাসা বাড়ির ৬৩ পাউন্ড করে ইমিগ্র্যান্টোদের পেছনে খরচ হচ্ছে।

আবার এই ৮৯.৭ বিলিয়ন পাউন্ডের কন্ট্রিবিউশন এর মধ্যে ৪২.৩ বিলিয়ন ইমকাম ট্যাক্স এবং ন্যাশনাল ইনস্যুরেন্স বাবত, ২৮.৫ বিলিয়ন ভিএটি, সহ অন্যান্য খাতে, বিসনেস রেইট এর ক্ষেত্রে ১৮.৯ বিলিয়ন তারা কন্ট্রিবিউট করেছেন বিগত সালে।

পক্ষান্তরে সরকারের খরচের ১০৬.৭ বিলিয়ন পাউন্ডের মধ্যে সরকারি পেনশন খাতে ৮.৮ বিলিয়ন, এনএইচএস খাতে ১৮.৬ বিলিয়ন এবং শিক্ষা খাতে ১৮ বিলিয়ন পাউন্ড ইমিগ্র্যান্টোদের পেছনে সরকারের খরচ হচ্ছে।

আবার অতিরিক্ত হিসেবে আরো ৩৯.৯ বিলিয়ন পুলিশ রোড ট্র্যাফিকিং খাতে, আর ২১.৪ বিলিয়ন ওয়ার্কিং এজ বেনিফিট, জব সিকার্স এলাউন্স, ট্যাক্স ক্রেডিট খাতে সরকার ইমিগ্র্যান্টোদের জন্য ব্যয় করতে হচ্ছে, যেহেতু অনেকেই দীর্ঘদিন ধরে আছেন।

ইউরোপিয় ইকোনোমিক এরিয়ার ভিতরের ইমিগ্র্যান্টরা যেমন নরওয়ে, আইসল্যান্ড, ল্যাইচেন্সটেন এর অভিভাসীরা ৩১.২ বিলিয়ন ট্যাক্স কন্ট্রিবিউট করছেন কিন্ত বিপরীতে সরকারের খরচ হচ্ছে ৩২.৪ বিলিয়ন- সেক্ষেত্রে মাইগ্রেশন ওয়াচ বলছে ১.২ বিলিয়ন সাশ্রয় করা যাবে ইউরীপিয় ইউনিয়ন ত্যাগ করলে। আর এর আওতার বাইরে যারা তাদের দ্বারা কন্ট্রিবিউট ৫৮.৫বিলিয়ন পরোক্ষভাবে খরচ হচ্ছে ৭৪.২ বিলিয়ন অর্থাৎ ১৫.৭ বিলিয়ন সরকারের অতিরিক্ত খরচের বার্ডেন এ ক্ষেত্রে স্পষ্ট।

মাইগেশন ওয়াচের থিংক ট্যাক ও চেয়ারম্যান লর্ড গ্রিন অব ডোডিংটন বলছেন, এতে পরিস্কার ধারণা আমরা পাচ্ছি যে, মাইগ্রেশন আমাদের ফিসক্যাল অর্থনীতিতে খুব একটা ফলপ্রসূ ভুমিকা রাখছে বলে মনে হচ্ছেনা। বরং হাউজিং এবং পাবলিক সার্ভিস ও স্পেন্ডিং এর উপর প্রেসার পড়ছে , সেই সাথে জনসংখ্যার অনুপাত কেবল বৃদ্ধি পাচ্ছে আমাদের রাস্তা ঘাট ও বাসা বাড়িতে।

ইউকিপ এমইপি স্টিভেন উলফ রিপোর্ট সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে বলেছেন, বিগত চার বছর ধরে ইউকিপ যা বলে আসছে, সেটাই রিপোর্টে প্রতিফলিত হয়েছে। এর একটাই সমাধান আমাদের বর্ডার কন্ট্রোল । টোরি এমপি টম পার্সগ্লোভও একই মন্তব্য করেছেন। তিনি বলেছেন, ২৩ তারিখ রেফারেন্ডামে ব্রিটিশ জনগনের সামনে সুযোগ এসেছে আমাদের বর্ডার কন্ট্রোলের পক্ষে মতামত দেয়ার।

এ ব্যাপারে সরকারের মুখপাত্র বলেছেন, রিপোর্টে ইমিগ্র্যান্টদের দ্বারা লাইফ টাইম কন্ট্রিবিউশনকে ধর্তব্যের মধ্যে নেয়া হয়নি।



সাম্প্রতিক খবর

জমজম বাংলাদেশের এক্সিকিউটিভ ডনর মেম্বার হলেন আলহাজ্ব এ এস মোহাম্মদ সিংকাপনী

photo লন্ডনবিডিনিউজ২৪ : আন্তর্জাতিক চ্যারিটি সংস্থা জমজম বাংলাদেশের এক্সিকিউটিভ ডনর মেম্বার হয়েছেন সাপ্তাহিক বাংলা পোষ্ট পত্রিকার সাবেক ম্যানেজিং ডাইরেক্টর ,বিশিষ্ট সমাজসেবী ও পিকাডেলী মসজিদের প্রতিষ্ঠাতা সেক্রেটারী আলহাজ্ব এ এস মোহাম্মদ সিংকাপনী।তিনি সম্প্রতি বাংলাদেশ সফরকালে জমজম বাংলাদেশের সিলেটে শিক্ষা ও সমাজসেবামূলক কার্যক্রম দেখে সন্তুষ্ট হয়ে ১০ লাখ টাকা অনুদান

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment