আজ : ০৫:২২, জুন ৪ , ২০২০, ২১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭
শিরোনাম :

এ টি এম শামসুজ্জামানের চিকিৎসায় ১০ লাখ টাকা দিলেন প্রধানমন্ত্রী


আপডেট:০৬:৫৮, মে ১৩ , ২০১৯
photo

বিনোদন ডেস্ক: এ টি এম শামসুজ্জামানের চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে ১০ লাখ টাকা অনুদান দেওয়া হয়েছে।

আজ সোমবার সকাল ৮টায় রাজধানীর পুরান ঢাকার আজগর আলী হাসপাতালে এ টি এম শামসুজ্জামানের মেয়ে কোয়েলের হাতে অনুদানের চেক তুলে দেন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া।

সে সময় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের সমন্বয়ক ডা. সামন্তলাল সেন, সংগীতশিল্পী রফিকুল ইসলাম প্রমুখ।

এ বিষয়ে এ টি এম শামসুজ্জামানের স্ত্রী রুনি জামান এনটিভি অনলাইনকে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে আজ আমরা ১০ লাখ টাকা অনুদান পেয়েছি। আগের থেকে উনি (এ টি এম শামসুজ্জামান) ভালো আছেন। ’

অন্যদিকে ডা. সামন্তলাল সেন বলেন, ‘এ টি এম শামসুজ্জামানের চিকিৎসা আপাতত দেশেই হবে। এ ব্যাপারে তাঁর পরিবারের সম্মতি রয়েছে। তবে হাসপাতাল পরিবর্তন হতে পারে। আগের থেকে তাঁর শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে।’

বর্তমানে রাজধানীর আজগর আলী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন বরেণ্য অভিনেতা এ টি এম শামসুজ্জামান। অধ্যাপক মতিউল ইসলামের অধীনে চিকিৎসাধীন আছেন তিনি।

মলমূত্র বন্ধ হয়ে যাওয়ায় গত ২৬ এপ্রিল শুক্রবার রাতে অসুস্থ বোধ করেন এ টি এম শামসুজ্জামান। শ্বাসকষ্টও শুরু হয় তাঁর। এরপর সেদিন রাত ১১টায় পুরান ঢাকার আজগর আলী হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বর্ষীয়ান এই অভিনেতাকে। গত ২৭ এপ্রিল দুপুর দেড়টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত তাঁর ফুসফুসে অস্ত্রোপচার করা হয়। ফুসফুসে সংক্রমণ দেখা দেওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয় তাঁর। এরপর ৩০ এপ্রিল তাঁকে প্রথম লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। পরে লাইফ সাপোর্ট খুললে আবারও অসুস্থবোধ করেন তিনি। ৬ মে আবারও তাঁকে লাইফ সাপোর্ট দেওয়া হয়েছিল।

১৯৬১ সালে পরিচালক উদয়ন চৌধুরীর ‘বিষকন্যা’ চলচ্চিত্রে সহকারী পরিচালক হিসেবে ঢালিউডে যাত্রা শুরু হয় এ টি এম শামসুজ্জামানের। ‘জলছবি’ ছবিতে প্রথম কাহিনী ও চিত্রনাট্যকার হিসেবে কাজ করেছেন তিনি। ১৯৬৫ সালের দিকে অভিনেতা হিসেবে চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন তিনি। আমজাদ হোসেনের ‘নয়নমণি’ ছবিতে খলনায়কের চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে ১৯৭৬ সালে আলোচনায় আসেন তিনি।

২০১৫ সালে শিল্পকলায় অবদানের জন্য রাষ্ট্রীয় সর্বোচ্চ সম্মাননা একুশে পদক পান গুণী এই অভিনেতা। জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন পাঁচবার। এ টি এম শামসুজ্জামান অভিনীত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রগুলো হলো ‘লাঠিয়াল’, ‘সূর্য দীঘল বাড়ি’, ‘দায়ী কে?’, ‘ম্যাডাম ফুলি’, ‘চুড়িওয়ালা’, ‘মন বসে না পড়ার টেবিলে’, ‘মোল্লা বাড়ির বউ’ ইত্যদি।



সাম্প্রতিক খবর

প্রবাসী বাংলাদেশীদের নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিবাদ ও নিন্দা : প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদানের সিদ্ধান্ত

লন্ডনবিড়িনিউজ২৪ঃবিশেষ প্রতিনিধি: গত ৩১শে মে রবিবার ভারচুয়াল মিডিয়া ঝুমের মাধ্যমে লণ্ডনে অনুষ্ঠিত সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দের এক জরুরী প্রতিবাদ সভায় সম্প্রতি প্রবাসী বাংলাদেশী সম্পর্কে বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রীর অশালীন মন্তব্য করার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানানো হয় ।সভায় বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী বরাবরে একটি প্রতিবাদ লিপি প্রেরণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বিশিষ্ট

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment