আজ : ০৫:০৩, জানুয়ারি ২৪ , ২০২০, ১০ মাঘ, ১৪২৬
শিরোনাম :

কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অ্যাঞ্জেলিনা জোলি


আপডেট:০৬:৩২, ফেব্রুয়ারি ৫ , ২০১৯
photo

ঢাকা প্রতিনিধি: হলিউডের অভিনেত্রী ও জাতিসংঘ শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর’এর বিশেষ দূত অ্যাঞ্জেলিনা জোলি আজ মঙ্গলবার (৫ ফেব্রুয়ারি) কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করছেন। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কুতুপালং এক্সটেনশন-৪ ক্যাম্পে পৌঁছান এবং সেখানকার শিক্ষা কেন্দ্রগুলো পরিদর্শন করেন তিনি। পরে কুতুপালং ৩নং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের রিলিফ ইন্টান্যাশনাল পরিচালিত স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র পরিদর্শন করেন। একই ক্যাম্পে নির্যাতিত রোহিঙ্গা নারীদের সঙ্গে কথা বলেন এবং তাদের দুর্দশার কথা মনোযোগ দিয়ে শুনেন। দুপুরে কুতুপালং ৪নং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে হোপ ফাউন্ডেশন পরিচালিত হাসপাতাল পরিদর্শন করার কথা রয়েছে। এছাড়া বিকাল ৩টার দিকে কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ডি-৫ ব্লকে প্রেসব্রিফিংয়ে যোগ দেওয়ার রয়েছে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেন জানিয়েছেন, অ্যাঞ্জেলিনা জোলি দুইদিনের সফরে কক্সবাজারে এসেছেন। সোমবার (৪ ফেব্রুয়ারি) টেকনাফের চাকমারকুল রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন শেষে আজ উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন করছেন। সারাদিন উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা শিবিরে ব্যস্ত সময় পার করবেন তিনি। আগামীকাল বুধবার সকালে ঢাকার যাবেন তিনি।

সোমবার (৪ ফেব্রুয়ারি) দুইদিনের জন্য সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজার পৌঁছান তিনি। পরে দুপুর ২টার দিকে টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের চাকমারকুল ২১নং রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন করেন। সেখানে নির্যাতিত ও ধর্ষণের শিকার রোহিঙ্গা নারীদের সঙ্গে কথা বলেন এবং ভয়াবহ নির্যাতনের কাহিনি শুনেন।

২০১৭ সালে রোহিঙ্গাদের দেখতে বাংলাদেশে আসার আগ্রহ প্রকাশ করেন জোলি। কিন্তু বিভিন্ন কারণে এর আগে অন্তত চারবার তার বাংলাদেশ সফর বাতিল করা হয়। এবার পাঁচ দিনের সফরে এসেছেন তিনি। সফরকালে তার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করার কথা রয়েছে।

গত বছরের ২১ মে জাতিসংঘের শিশু তহবিলের (ইউনিসেফ) শুভেচ্ছা দূত হিসেবে কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন করেন বলিউড অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা চোপড়া।



সাম্প্রতিক খবর

বৃটেনে ইমিগ্রশন আইন শিথিল

photo লন্ডনবিডিনিউজ২৪ : বিদেশি কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে বছরে ৩০ হাজার পাউন্ড বেতন দেওয়ার যে শর্ত রয়েছে, সেটি বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যুক্তরাজ্য সরকার। গতকাল মঙ্গলবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এ সিদ্ধান্তের কথা জানান। বরিস জনসন বলেন, ব্রেক্সিট পরবর্তী সময়ের জন্য সরকার যে অভিবাসন নীতি প্রণয়ন করতে যাচ্ছে, আয়ের ওই শর্ত তার সঙ্গে সংগতিপূর্ণ নয়।

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment